Home ব্যবসায়িক পরামর্শ মৌমাছি চাষের ব্যবসা
মৌমাছি চাষের ব্যবসা

মৌমাছি চাষের ব্যবসা

by Tandava Krishna

কিভাবে মৌমাছি চাষের ব্যবসা শুরু করবেন?

অন্যান্য ব্যাবসার মতো মৌমাছি চাষও বেশ লাভজনক ব্যবসা। বাড়িতে একটি ঘর বা উঠোনের মতো ফাঁকা জায়গা থাকলে সেখানে অনায়াসে মৌমাছি চাষ করা যায় , তবে মৌমাছির নাম শুনলে আমরা ভয় পাই। সেই ভয় কাটিয়ে উঠে কয়েকটি সুকৌশল অবলম্বন করে কয়েকমাসের মধ্যে নিজের মৌমাছি চাষের ব্যবসাকে অন্যতম জীবিকা হিসাবে গ্রহণ করেছেন এমন মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়।  যেহেতু মধু এবং মোমের চাহিদা সারাবছর থাকে, তাই বর্তমানে ভারতবর্ষে অফবিট এবং চমকপ্রদ ব্যবসা গুলির মধ্যে মৌমাছি চাষের ব্যবসা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে , আর যারা নতুন কোনো ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন কিন্তু প্রথমেই প্রচুর টাকা খরচ করে ব্যবসা করার সামর্থ নেই কম খরচে ব্যবসা শুরু করার জন্যে মৌমাছি চাষ অন্যতম উপায় একথা বলাই যায়। এবার আমরা আলোচনা করবো এই ব্যবসা শুরু করার জন্যে কিভাবে এগোতে হবে, কি কি কাজ করতে হবে এবং সমস্ত রকমের সুবিধা অসুবিধার দিকগুলো।  

শুরু করার প্রথম ধাপ- বাক্স এবং তার ব্যবস্থা 

একটি বাক্সে সাধারণতঃ ২ থেকে ৪ লক্ষ পর্যন্ত মৌমাছি থাকতে পারে এবং ৪-৫ কেজি ভালো মধু পাওয়া যায়।প্রতিটি বাক্সের ভিতরে ৯ টি বা ১০টি ট্রে থাকে, শ্রমিক মৌমাছির সংখ্যা বেশি থাকলেও রানী মৌমাছির সংখ্যা সেখানে একটিই থাকে। আর পুরুষ মৌমাছিরা এই ডিমগুলি নষ্ট করে দেয় বলে এবং  অনেকসময় এই মৌমাছি গুলি মধু খেয়ে নেয় বলে সেগুলিকে বাক্সে বেশি রাখা হয় না। আর কৃত্তিম মধুর তুলনায় আসল মধুর দামের কি ফারাক বাজার ঘুরলেই তা ভালো ভাবে বোঝা যায়।

প্রথমেই বলি মৌমাছি চাষ করার জন্যে কয়েকটি কাঠের বাক্সের প্রয়োজন, যেহেতু মৌমাছির বংশবৃদ্ধি খুব তাড়াতাড়ি হয়, তাই ২টি বাক্স থেকে মৌমাছি চাষ শুরু করলে কয়েকমাসের মধ্যেই সেটা ৬ টা বা ৭ টা বাক্স হয়ে যাবে , তাই যদি সিরিয়াসলি এই ব্যবসা করতে চাও প্রথমেই ১ টি বা দুটি বাক্স না কিনে ৮ ৯ টি বাক্স কিনে নেওয়াই ভালো হবে। আরেকটি এই ব্যাবসার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো বছরে ৬ মাস এই ব্যবসা করা হয় এবং সেখান থেকেই বেশ মোটা পরিমানে লাভও করা যায়।  

প্রথমে আপনাকে কিছু ভাল মৌমাছি থেকে শুরু করতে হবে এবং একটি নিউক্লিয়াস কলোনী দিয়ে শুরু করতে হবে। যেহেতু খুব তাড়াতাড়ি মৌমাছি সংখ্যায় বাড়ে তাই শুরুতে সর্বনিম্ন কলোনি দিয়ে শুরু করা উচিত, দুটি মধু মৌমাছির কলোনীর অভিজ্ঞতা অর্জনের পরে, আপনি বাণিজ্যিক মৌমাছি পালনের জন্য শুরু করতে পারেন।আর এটি খুব বুদ্ধিদীপ্ত হবে।  

সুষ্ঠু আবহাওয়া এবং পোকার আক্রমণ

মৌমাছি চাষ সাধারণত আবহাওয়ার উপর নির্ভর করে এবং ভালো আবহাওয়া থাকলে একমাসেই ৪ থেকে ৫ বার টান হয়, আর প্রতিবার একটি বাক্স থেকে এক টিন করে মধু পাওয়া যায়। তাহলে যত বাক্স বাড়বে মধুর পরিমান ও ততো বাড়বে। তবে মৌমাছির বিভিন্ন রকম রোগ হয়, নিজে প্রস্তুত না থাকলে এই রোগ গুলি সম্পর্কে জানা সম্ভব নয়, তাই প্রতি মাসে বাক্স থেকে ট্রে গুলো বের করে মৌমাছি গুলো সুস্থ আছে কিনা দেখতে হবে, কোনো রোগ হলে বা তাদের কিছু অসুবিধা হলে তার যথাযোগ্য ট্রিটমেন্ট করতে হবে। এই মৌমাছির সুস্থতার উপরেই মধুর পরিমান নির্ভর করে তাই সঠিক পদ্ধতিতে মৌমাছির পরিচর্যা -এই ব্যাবসার অন্যতম কাজ একথা বলা যেতেই পারে। এই চাষে  বা ব্যবসাতে তেমন কিছু ক্ষতি না হলেও প্রথম থেকে সাবধানতা অবলম্বন করাই ভালো।  বেশিরভাগ মৌমাছি পালনকারী প্রতি বছর / মরসুমে 2-3 বার মধু সংগ্রহ করেন। সাধারণত জুনের মাঝামাঝি থেকে সেপ্টেম্বর এর মাঝামাঝি পর্যন্ত এই মধু সংগ্রহ করা হয়। আপনি কতবার এই মধু পাবেন তা  আপনার স্থানীয় জলবায়ু এবং মৌমাছির জীবনের উপর নির্ভর করে। খারাপ আবহাওয়া পরিস্থিতি, রোগ এবং পোষক(ক্ষতিকর কীটপতঙ্গ) আপনার চাষ করার পদ্ধতিতে, মৌমাছির ডিম পাড়ার সময়সূচীতে  প্রভাবিত করতে পারে।  

কেন এই ব্যবসা ধীরে ধীরে জনপ্রয় হচ্ছে?

বাণিজ্যিকভাবে, মৌমাছি পালন করার ব্যবসাটি সবচেয়ে লাভজনক যা আপনাকে খুব অল্প সময়ে দ্রুত আয় করাতে পারে। যেহেতু মধুর স্বাস্থ্যগত সুবিধা এবং গুণগত মান বাজারে খুব বেশি এবং পুজো বা যে কোনো  অনুষ্ঠানেও মধু একটি অন্যতম উপাদান হিসাবে ব্যবহৃত হয় তাই সারাবছর মধুর বেশ ভালোরকম চাহিদা রয়েছে, এতে কোনো ভুল নেই।আর এই ব্যবসায়ের বিপণনের প্রয়োজন নেই, হোলসেল মার্কেট থেকে সহজেই মধু বিক্রি করা যায় আর খুব কাঁচামাল কেনারও প্রয়োজন হয় না। তাই অনেকেই সাধারণ ব্যবসা থেকে এই সব ব্যাবসায় ফিরে আসছেন। 

অনুমতি পত্রের ব্যবস্থা 

আপনি যেখানে থাকেন সেখানে মৌমাছি রাখার ক্ষেত্রে কোনও বিধিনিষেধ নেই এই বিষয়টি যাচাই করার জন্য লিখিত অনুমতি পেতে হবে এবং সেটি পাওয়ার জন্য আপনার স্থানীয় জোনিং অফিসে যেতে হবে। যদি আপনার বাসস্থান কোনও বাড়ির মালিক বা সমিতির দ্বারা পরিচালনা করা হয় তবে তার থেকে অনুমতি ছাড়া ব্যবসা শুরু করলে আপনার অসুবিধা হতে পারে। এই ব্যাপারগুলি সম্পর্কে আগে সচেতন হোন এবং নিশ্চিত হয়ে আপনার মৌমাছি পালন ব্যবসা বিকাশের পথ সুস্পষ্ট করুন। সেই অনুমোদনের নথিও ব্যাবসার পথ স্থির করবে।

কৃষি ব্যবসায়ের সাথে অভিজ্ঞ একজন সার্টিফাইড পাবলিক অ্যাকাউন্ট্যান্টের সহায়তায় আপনি একটি ব্যবসায়ের কাঠামো নির্বাচন করতে পারেন। শক্তিশালী দায়বদ্ধতার ক্ষমতা সহ বাণিজ্যিক বীমা এজেন্টের সাথে পরামর্শ করুতে পারেন এবং আপনার শহর বা কাউন্টি ক্লার্কের অফিস থেকে একটি ব্যবসায়িক লাইসেন্স জোগাড় করতে পারেন এবং অন্যান্য অনুমতি সম্পর্কে অনুসন্ধান করতে পারেন। আপনার মৌমাছি সম্পর্কিত পণ্য বিক্রয়ের জন্য বিক্রয় করের লাইসেন্স সম্পর্কিত আপনার রাজ্য- রাজস্ব বিভাগের সাথে যোগাযোগ করতে হবে এবং রাজ্য মৌমাছি পালন আইন সম্পর্কিত কোনও কৃষি অ্যাটর্নির সাথে পরামর্শ করতে হতে পারে।

নিজের প্রতিরক্ষা 

মৌমাছি পালন শুরু করলে নিজের প্রতিরক্ষার ব্যাপারে নজর দিতে হবে , সাধারণত মৌমাছি কামরায় না, তবে মুখ ও হাত ঢাকার জন্যে নেটের তৈরী টুপি পাওয়া যায়, আর মৌমাছির রক্ষার জন্যেও একধরণের ধোঁয়ার ব্যবস্থা করা হয় যেটা মধু সংরক্ষণে সাহায্য করে।  মৌমাছি পালনের সরঞ্জাম সাধারণত দুটি ভাগে বিভক্ত করা যেতে পারে: মৌমাছির রক্ষাকবচ প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম এবং মৌচাক রক্ষণাবেক্ষণ এবং মধু সংগ্রহের সরঞ্জামসমূহ। গাঢ় রঙের  টুপি এবং মুখের ওড়না সূর্যের ঝলক কমিয়ে দেবে।এর ফলে মৌমাছিকে শান্ত করতে সাহায্য হয় এবং এই ধোঁয়া মৌচাক গুলির মধ্যে ধোঁয়া দেয় যাতে আপনি মধু সংগ্রহের কাজ করতে পারেন। মধু সংগ্রহের সময় মৌমাছিকে মধু থেকে দূরে সরিয়ে নিতে মৌমাছি দূরীকরণ ব্লোয়ার এবং ব্রাশ অর্ডার করতে পারেন। অন্যান্য অ-অপরিহার্য সহায়ক প্রয়োগ করলে মৌমাছিকে খাওয়ানো এবং মৌচাক থেকে মোম দূর করতে সহায়তা করে। যেখানে এসব জিনিস পাওয়া যায় সেই সব জায়গায় গিয়ে খবর নিলে আপনার সুবিধা হতে পারে।

বাণিজ্যিক কৌশল 

আপনার উৎপাদিত দ্রব্য আপনার বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের কাছে বিক্রি করার পাশাপাশি স্বাস্থ্যসম্মত  খাবারের দোকান এবং আশেপাশের বাজারগুলিতে বিক্রয় করতে পারেন। মধু বিক্রয়ের জন্য প্রদর্শন করলে তা অবশ্যই বিক্রি হবে। উপহারের দোকানগুলিতে এবং ক্রাফ্ট শোগুলিতে মোম ও মোমবাতি দিয়ে তৈরির বিভিন্ন কারুকার্য দেখতে পারেন। শেষ অবধি, কারুশালার অনুষ্ঠানগুলি এবং ব্রোয়ার মার্কেটগুলিতে মোমওয়াক্সকে হার্ডওয়্যার স্টোরে রূপান্তর করার মাধ্যমে আপনার ব্যবসাকে বর্ধিত করতে পারেন। তাহলে নতুন উদ্দমে ব্যবসা শুরু করুন।

যেহেতু এই ব্যবসা খুব একটা জনপ্রিয় হয়নি , তাই অনেকে এই ব্যাবসার কথা জানেনই না, কিন্তু কম পরিশ্রম করে যে ব্যবসা করার সাহস দেখানো যায় এই প্রবন্ধ থেকে সেটা আপনাদের কাছে আশা করি পরিষ্কার হয়েছে।

Related Posts

Leave a Comment