Home ব্যবসায়িক পরামর্শ টিভি মেরামত ব্যবসা
টিভি মেরামত ব্যবসা

টিভি মেরামত ব্যবসা

by Tandava Krishna

কীভাবে টিভি সারানোর ব্যবসা শুরু করা যায়?

আজ প্রায় ২০ বছরেরও বেশী সময় ধরে টিভি প্রতিটি পরিবারের অংশ হয়ে রেয়েছে। প্রথম দিকে টিভি ছিল আকারে বড় কিন্ত যত সময় এগিয়েছে, নতুন নতুন প্রযুক্তি এসেছে। টিভি তার আকার বদলে ফ্ল্যাট এলসিডি টিভিতে পরিণত হয়েছে, তারপর এলইডি আর এখন এসেছে স্মার্ট টিভি। বিভিন্ন টিভিতে বিভিন্ন ধরণের সুযোগ সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে। সেই ব্যাপারের এই প্রবন্ধে আর বিস্তারিত আলোচনা করছি না। ইলেক্ট্রনিকস দ্রব্যাদি যখন তখন খারাপ হতেই পারে। আর টিভি যেহেতু আমাদের সব সময়ের সাথী তাই সেটি খারাপ হলে আমরা সব সময় চেষ্টা করি যে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাকে সারিয়ে নেওয়া। তাই আপনি যদি টিভি সারানোয় পারদর্শী হন এবং এই ব্যবসা শুরু করার কথা চিন্তা করে থাকেন, তবে এটা আপনার একটা খুব ভালো সিদ্ধান্ত।

টিভি সারানোর ব্যবসা শুরু করার জন্য বেশ কিছু জিনিস আপনাকে মাথায় রাখতে হবে যেমন – বর্তমান প্রযুক্তির সাথে আপনি নিজেকে আপডেটেড রাখতে হবে, টিভি সারানোর জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত যন্ত্রপাতি সাথে রাখতে হবে। আসুন দেখে নি একটি সফল টিভি সারানোর ব্যবসা শুরু করার জন্য কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

পরিকল্পনা

শুধু ব্যবসা নয়, যেকোনো বিষয়ের ক্ষেত্রেই সঠিক পরিকল্পনা করাটা খুবই জরুরি। এই ক্ষেত্রে আপনাকে সর্বপ্রথম মাথায় রাখতে হবে যে আপনার ব্যবসার একটি সম্পূর্ণ পরিকল্পনা আপনাকে করে রাখতে হবে। যে বিষয়গুলিকে সব থেকে বেশী আপনাকে মাথায় রাখতে হবে সেগুলি হলঃ একদম প্রাথমিক ক্ষেত্রে এবং তার পরবর্তী কিছুদিন ব্যবসা চালানোর জন্য কত খরচ হতে পারে তার একটা বাজেট তৈরী নিতে হবে। আপনাকে নির্বাচন করতে হবে যে কারা আপনার মূল ক্রেতা হবেন এবং কতটা পরিধির মধ্যে আপনি এই ব্যবসা চালাতে চান। আপনার ক্রেতাদের থেকে আপনি সার্ভিস চার্জ হিসেবে কত টাকা নেবেন। এই বিষয়ে কিছু তথ্য নীচে দেওয়া হল। 

টিভি সারাইয়ের ব্যবসা শুরু করার প্রাথমিক খরচ কি কি?

অন্যান্য ব্যবসার তুলনায় এই ব্যবসায় প্রাথমিক খরচ বা পুঁজির প্রয়োজন কম হয়। তার কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আপনাকে গ্রাহকের বাড়ী গিয়ে টিভি সারাতে হবে। তবে এই ব্যবসার ক্ষেত্রে মূল খরচ হল টিভির বিভিন্ন অংশ পরীক্ষা করা ও সারানোর যন্ত্রপাতি কেনা। সমস্ত রকম যন্ত্র কেনার জন্য বেশ কিছু অর্থের প্রয়োজন হয়। এছাড়া অন্য কোনও খরচ বিশেষ কিছু নেই। টিভির কোনও অংশ বদলাতে হলে তার টাকা তো আপনার গ্রাহকের কারছ থেকে আপনি পেয়ে যাবেন। এছাড়া আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ খরচের জায়গা হল ব্যবসা করার জন্য ট্রেড লাইসেন্স বানানো। 

ব্যবসার চলমান আর কি কি খরচ আছে?

যে কোনো ব্যবসা ক্রমাগত চালানোর জন্য বেশ কিছু পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন। যে যে খাতে আপনাকে প্রতিনিয়ত খরচ করতে হবে সেগুলি হল – সারাইয়ের যন্ত্রপাতি খারাপ হইয়ে গেলে সেগুলোকে পরিবর্তন করা, নতুন ধরণের কোনও যন্ত্র বাজারে এলে তা কেনা, নতুন প্রযুক্তি চালু হলে তা শেখা, রপ্ত করা এবং কর্মীদের শেখানো, বছর বছর লাইসেন্স রিনিউ করা, কর্মীদের মাসিক মাহিনা, দোকান বা অফিসের মাসিক ভাড়া( যদি ভাড়াতে নেওয়া থাকে) গ্রাহকের বাড়ী যাতায়াতের জন্য গাড়ী বা বাইক এর যত্ন করা এবং তেল ভোরানো। ব্যবসা শুরু করার সময় এই খরচগুলির কথা আপনাকে মাথায় রাখতে হবে।

কীভাবে এই টিভি সারাইয়ের কাজ থেকে অর্থ আসে?

টিভি সাইরাইয়ের জন্য আপনি একটি পারিশ্রমিক তো নেনই, তার সাথে আর কীভাবে এই ব্যবসা থেকে আয় করা যায় সেটিও আপনাকে ভাবতে হবে। তাই টিভি সারানো ছাড়াও আপনি টিভির বিভিন্ন আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র যেমন সার্কিট বোর্ডের আই সি, টিভির রিমোট ইত্যাদি আপনার দোকান থেকে বিক্রি করতে পারেন। এছাড়াও আপনি ব্যবহৃত পুরানো টিভি কম দামে বিক্রি করতে পারেন। অনেকেই আছেন যারা হয়তো কয়েক মাসের জন্য সেই জায়গায় ভাড়া বাড়ীতে উঠেছেন। এইক্ষেত্রে অনেক সময়ই তাঁরা নতুন টিভি বা অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিকস দ্রব্যাদি কেনেন না। তাঁরা খোঁজেন কমদামে যদি পুরানো টিভি বা ফ্রিজ পাওয়া যায়। সেই কারণে আপনার সারাইয়ের কাজের সাথে সাথে আপনি এই পুরানো টিভি বিক্রিও করতে পারেন।

কীভাবে আপনি গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা বা আপনার পারিশ্রমিক নেবেন?

আপনার পরিষেবার জন্য আপনি দু’রকম ভাবে পারিশ্রমিক নিতে পারেন। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে আপনি গ্রাহকের বাড়ি গেলেন টিভি সারাই করতে। সেখানে আপনাকে টিভি সারাই করার জন্য নতুন কোনো পার্টস ব্যবহার করতে হল বা বদল করতে হল। এখন সেই পার্টসটি যদি গ্রাহক নিজেই কিনে আনেন তাহলে আপনি শুধু পারিশ্রমিক নেবেন গ্রাহকের থেকে। কিন্তু আপনি যদি নিজে সে পার্টসটি দেন বা কিনে আনেন, তবে আপনার পারিশ্রমিকের সাথে আপনি সেই পার্টসটির দামও যোগ করে নেবেন।

কত মুনাফা উপার্জন করতে পারবেন?

টিভি সারাইয়ের ব্যবসায় আপনার মাসে কত টাকা আয় বা লাভ হতে পারে? এটি নির্ভর করে আপনি সারা মাসে কতগুলি কাজ করেছেন এবং কীধরনের কাজ করেছেন। যদি আপনি খুব ছোট ছোট সমস্যার জন্য টিভি সারাই করে থাকেন, তবে আপনার পারিশ্রমিক কম হতে পারে কিন্তু বড় কাজ করলে আপনার পারিশ্রমিক বেশী হবে। এবার বাঁকিটা নির্ভর করছে আপনি সারা মাসে কতগুলি কাজ করছেন। তবে সাধারণভাবে এই ব্যবসায় যা মুনাফা আসে তাতে আপনি খুবই আরামদায়ক জীবনযাপন করতে পারবেন। 

খেলা দেখা থেকে শুরু করে, ছোটদের কার্টুন, গোটা দেশের খবরাখবর, রিয়্যালিটি শো, সিরিয়াল, সিনেমা সবই আমরা দেখতে পাই শুধুমাত্র বাড়ীতে একটা টিভি আছে বলে। যদিও এখন এর মধ্যে অনেক কিছুই আমরা মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে দেখে নিতে পারি। কিন্তু টিভি যদি বাড়িতে চলে তাহলে মোবাইল ছেড়ে আমরা সেই প্রোগ্রামটি টিভিতেই দেখার চেষ্টা করি। মোবাইলে টিভির সমস্ত কিছু দেখার চল এখনও পুরোপুরিভাবে মানুষ রপ্ত করে উঠতে পারেনি। তাই টিভি এখনও পর্যন্ত আমাদের প্রতিদিনের জীবনের সাথে অঙ্গাঙ্গিকভাবে জড়িত।

আপনি ব্যবসা খুলতে চাইছেন সেটা খুব ভালো কথা কিন্তু ব্যবসায় নামার আগে নিজেকে বা আপনার কর্মীদের যাচাই করে নেওয়া প্রয়োজন আপনি বা আপনার কর্মীরা যেন সকলেই এই কাজে পারদর্শী হন। কারণ আপনি গ্রাহকের বাড়ীতে গিয়ে যদি তাঁর সমস্যার সমাধান করতে না পারেন বা সারাই করার পরিবর্তে আরও খারাপ করে দেন নিজেদের ভুলের জন্য, তাহলে তা আপনি বা আপনার ব্যবসার জন্য খুবই খারাপ একটি বিষয়। 

সুতরাং এই প্রবন্ধে আমরা আলোচনা করলাম যে কীভাবে আপনি সফলভাবে টিভি সারাইয়ের ব্যবসা শুরু করা যায়। প্রথমেই আমাদের যেটা করা দরকার, তা হল একটা সঠিক পরিকল্পনা করা। তারপর আমাদের দেখে নিতে হবে যে এই নতুন ব্যবসার জন্য আমাদের প্রাথমিক খরচ কী কী। শুধু তাই নয় রোজকার ভিত্তিতে আমাদের কী কী খরচ আছে। প্রাথমিক ভাবে লাইসেন্স বানানো এবং সারাইয়ের যন্ত্রপাতি কেনার জন্য একটা বড় খরচ করতে হয়। এবার রোজকার ভিত্তিতে কর্মীদের মাহিনা, যন্ত্রপাতি পরিবর্তন এবং নতুন প্রযুক্তির যন্ত্রপানি কেনা ও অন্যান্য অনেক ক্ষেত্রে সবসময়ের জন্য কিছু খরচ থেকেই যায়। এছাড়া আমরা আলোচনা করলাম কিভাবে এই ব্যবসায় অর্থ আসে এবং কতটা পরিমাণ মাসিক মুনাফা অর্জন করা সম্ভব। আপনার ব্যবসা তখনই সফল হবে যখন আপনার কাজে আপনার গ্রাহকরা খুশি হবেন এবং তাঁদের পরিচিতদের কাছে আপনার কাজের সুনাম করবেন। এতে আপনারই কাজের পসার বাড়বে এবং আপনি আরও বেশী উপার্জন করতে পারবেন।

Related Posts

Leave a Comment